শৌচাগারের পাশে শহীদ মিনার, স্থানীয়দের ক্ষোভ

170

নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় কয়েক বছরের দাবির প্রেক্ষিতে উপজেলা সদর ওছখালীর প্রাণকেন্দ্রে ঐতিহ্যবাহী এ এম উচ্চ বিদ্যালয়ে শৌচাগারের পাশ ঘেঁষে নির্মিত হচ্ছে ভাষা শহীদদের স্মৃতির প্রতীক শহীদ মিনার।

শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনে শৌচাগারের পাশ ঘেঁষে নির্মাণাধীন এ শহীদ মিনারটি নিয়ে উল্টো স্থানীয়দের মাঝে চরম ক্ষোভ প্রকাশ পেয়েছে। তবু থেমে নেই শহীদ মিনারের নির্মাণ কাজ।

স্থানীয়রা জানায়, মহান ভাষা আন্দোলনের ভাষা শহীদ ও মহান মুক্তিযুদ্ধের শহীদের স্মৃতিধারণ ও তাদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য শহীদ মিনার নির্মাণ করা হচ্ছে। এ শুভ লক্ষণ। কিন্তু কষ্ট থেকে যায়, এ এম উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি স্থানীয়দের মতামত উপক্ষো করে এবং কোনো নিয়ম না মেনে শহীদ মিনারটি নির্মাণ করছে। যা দেখলে উল্টো শহীদদের অবমাননা করা হচ্ছে বলে মনে হবে। অনেকেই বলেন, শৌচাগারের পাশ ঘেঁষে শহীদ মিনার নির্মাণ করায় এর সৌন্দর্য্য ও পবিত্রতা নষ্ট হচ্ছে। তাছাড়া ভাষা দিবস, স্বাধীনতা দিবস ও মহান বিজয় দিবসে শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানাতে শিক্ষার্থী ও স্থানীয় জনগণ একমাত্র এই শহীদ মিনারে ফুল দিতে আসবেন। কিন্তু সেখানে শৌচাগারের দুর্গন্ধও সহ্য করতে হবে এবং সেখানে একটি অস্বস্তিকর পরিবেশের সৃষ্টি হবে।

শৌচাগারের পাশে শহীদ মিনার নির্মাণ না করার জন্য একাধিকবার স্থানীয় জনগণ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জানালেও তারা কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। উল্টো নির্মাণ কাজ অব্যাহত রয়েছে।

এ এম উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক আনম হাসান জানান, বিদ্যালয়ের নিজস্ব অর্থায়নে এ শহীদ মিনার নির্মাণ করা হচ্ছে। তবে আমি যতটুকু জানি নির্মাণের পর শহীদ মিনার সংলগ্ন শৌচাগারটি ভেঙে ফেলা হবে। এ ব্যাপারে ম্যানেজিং কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিস্তারিত বলতে পারবেন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তিনি ফোন না ধরার ফলে তা সম্ভব হয়নি।

হাতিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূরের এ আলম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, তারা কিছু দিনের মধ্যে শৌচাগারটি ভেঙে ফেলবে।

আরও পড়ুন

বিশেষ মেহমান হিসাবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন বিএম এর নোয়াখালী জেলার সভাপতি ডাঃ এম এ নোমান,চাটখিল কামিল (এম.এ) মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও উপজেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া।

চাটখিলে ডিয়ার ছোয়াদ এজেন্সির হজ্জ প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান (রুবেল ভূঁইয়া) উপস্থিত নেতৃবৃন্দকে প্রতিষ্ঠানের চলমান উন্নয়ন এবং মাঠ সম্প্রসারণের কাজ সম্পর্কে অবগত করেন এবং মাদ্রাসা ক্যাম্পাস ঘুরিয়ে দেখান।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসার উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করলেন-এইচ এম ইব্রাহিম

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া বলেন,ঐতিহ্যবাহী চাটখিল কামিল মাদ্রাসা একটি শতবর্ষী প্রতিষ্ঠান।জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০২৪ এ প্রতিষ্ঠানটি উপজেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে আমার পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসা শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুপুর ১টার দিকে বাতাসে লাশের দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন দুর্গন্ধের উৎস খুঁজতে থাকে। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে লামচর গ্রামের সর্দার বাড়ি সংলগ্ন ডোবায় অর্ধগলিত একটি মরদেহ দেখতে পায় তারা।

চাটখিলে বৃদ্ধের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার

বেলায়েত হোসেন আশা করেন দলীয় নেতৃবৃন্দ ও তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সহযোগিতায় সর্বসাধারনের ভালোবাসায় তিনি বিপুল ভোটে চাটখিল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন।

চাটখিলে সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বেলায়েত এর মতবিনিময়

Comments are closed.