লক্ষ্মীপুরে টাকা ছাড়া মিলছে না বিদ্যুৎ–সংযোগ, প্রতারিত হচ্ছে গ্রাহকরা

110

সরকারিভাবে বিনামূল্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ ব্যবস্থার কথা থাকলেও লক্ষ্মীপুরে এখন টাকা ছাড়া মিলছে না বিদ্যুৎ-সংযোগ। বিদ্যুৎ সংযোগের নামে গ্রামে গ্রামে প্রভাবশালী দালাল চক্রের সদস্যরা লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিলেও দেখার যেন কেউ নেই।

অভিযোগ উঠেছে, অফিস সংশ্লিষ্ট অসাধু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করেই এসব টাকা আদায় করা হচ্ছে। এতে করে একদিকে যেমন প্রতারণার শিকার হচ্ছে গ্রাহকরা। অন্যদিকে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। তবে পল্লী বিদ্যুতের জেনারেল ম্যানেজার (জি এম) বলছেন নিয়মতান্ত্রিকভাবে সংযোগ দেওয়া হচ্ছে। গ্রাহক হয়রানি যেন না হয় সে ব্যাপারে কর্মকর্তারা সজাগ রয়েছেন বলে দাবি তার।

জানা যায়, লক্ষ্মীপুরে এ পর্যন্ত বিদ্যুতের মোট ৩ লাখ ১৫ হাজারটি মিটার স্থাপন করা হয়েছে। বিনামূল্যে ঘরে-ঘরে বিদ্যুত পৌঁছানোর সরকারি ঘোষণা ও শতভাগ বিদ্যুত-সংযোগ বাস্তবায়েন নতুন করে আরো ৪৫ হাজার মিটার স্থাপনে কাজ চলছে এখন। জেলার ৫টি উপজেলায় নতুন বিদ্যুত লাইন স্থাপন করতেও গ্রাহকদের কাছ থেকে ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা হারে টাকা আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গ্রামে গ্রামে স্থানীয় প্রভাবশালী চক্রের সদস্যরা সংশ্লিষ্টদের ম্যানেজ করে এসব টাকা আদায় করছেন।
‘টাকা দিলে বিদ্যুত মিলবে না দিলে মিলবে না’ বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

জেলা সদরের টুমচর, শাকচর, চাঁদখালি গ্রাম ও রায়পুরের কেরোয়া, চরবংশী এলাকাসহ অন্যান্য উপজেলার প্রতিটি এলাকায় নতুন সংযোগের অপেক্ষাকৃত গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা আদায় করছেন দালালরা। তারা লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিলেও উল্লেখযোগ্য কোন লক্ষ্মীপুরলক্ষ্মীপুরব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না তাদের বিরুদ্ধে। বিদ্যুতের খাম্বা ফেলতেই ৬ থেকে ১০ হাজার, মিটার ও ঘর ওয়ারিং করতে ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা আদায় করছেন এসব দালালরা। তবে দালালদের কেউ কেউ বলছেন, দ্রুত বিদ্যুত পেতে এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দেওয়া হচ্ছে এসব অবৈধ টাকা।

এ ব্যপারে লক্ষ্মীপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতির জেনারেল ম্যানেজার মো. শাহজাহান কবির বলছেন, কোথাও কোন অনিয়ম হলে সঙ্গে সঙ্গে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। গ্রাহকদের হয়রানি মুক্ত রাখতে কর্মকর্তারা সজাগ রয়েছেন জানিয়ে আগামী ২৯ জুনের মধ্যেই পুরো জেলা শতভাগ বিদ্যুতায়নের মধ্যে থাকবে বলে জানান তিনি।
এদিকে, সচেতনমহল মনে করছেন- গ্রাহকদের হয়রানি মুক্ত করতে ও সরকারি ভাবমূর্তি রক্ষায় এ ব্যাপারে জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।
নিউজ ক্রেডিট ঃ বিডি প্রতিদিন

আরও পড়ুন

অল্পদিনের মধ্যেই এখানকার উন্নয়ন কর্মকাণ্ড গতিশীল হবে জানিয়ে তিনি বলেন, কোনো অন্যায়, অবিচার, অনিয়ম ও চাঁদাবাজ আমার কাছে প্রশ্রয় পাবে না।

নিজ এলাকায় জনগণের ভালোবাসায় সিক্ত হলেন এইচ এম ইব্রাহিম এমপি

মফস্বলে সাংবাদিকতা করা একটা চ্যালেঞ্জ বলে মন্তব্য করেছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও নোয়াখালী-১ (চাটখিল-সোনাইমুড়ী) আসনের সংসদ সদস্য এইচ এম ইব্রাহিম।

মফস্বল সাংবাদিকতা করা একটা চ্যালেঞ্জ – এইচ এম ইব্রাহিম

এইচ এম ইব্রাহিম বলেন,আমার নির্বাচনী এলাকার অসুবিধাগ্রস্থ মানুষদের মাঝে অতীতের ন্যায় এবারও আমি শীতবস্ত্র বিতরণ করেছি। আমার নেতাকর্মীদের মাধ্যমে আমি প্রায় পঞ্চাশ হাজার পরিবারের কাছে এই শীতবস্ত্র পৌঁছানোর ব্যবস্থা করেছি।

নোয়াখালী-১ আসনে এইচ এম ইব্রাহিম এমপির শীতবস্ত্র বিতরণ

গ্রেপ্তার হওয়া মোশারফ হোসেন টিটু (২২) কবিরহাট থানার সুন্দলপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের লাতু সওদাগর বাড়ির মৃত মিয়াধনের ছেলে। সে পেশায় একজন মোবাইল মেকানিক।

কবিরহাটে ভাবির ব্যক্তিগত ভিডিও নিয়ে দেবর গ্রেপ্তার

Comments are closed.