লক্ষ্মীপুরে টাকা ছাড়া মিলছে না বিদ্যুৎ–সংযোগ, প্রতারিত হচ্ছে গ্রাহকরা

157

সরকারিভাবে বিনামূল্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ ব্যবস্থার কথা থাকলেও লক্ষ্মীপুরে এখন টাকা ছাড়া মিলছে না বিদ্যুৎ-সংযোগ। বিদ্যুৎ সংযোগের নামে গ্রামে গ্রামে প্রভাবশালী দালাল চক্রের সদস্যরা লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিলেও দেখার যেন কেউ নেই।

অভিযোগ উঠেছে, অফিস সংশ্লিষ্ট অসাধু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করেই এসব টাকা আদায় করা হচ্ছে। এতে করে একদিকে যেমন প্রতারণার শিকার হচ্ছে গ্রাহকরা। অন্যদিকে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। তবে পল্লী বিদ্যুতের জেনারেল ম্যানেজার (জি এম) বলছেন নিয়মতান্ত্রিকভাবে সংযোগ দেওয়া হচ্ছে। গ্রাহক হয়রানি যেন না হয় সে ব্যাপারে কর্মকর্তারা সজাগ রয়েছেন বলে দাবি তার।

জানা যায়, লক্ষ্মীপুরে এ পর্যন্ত বিদ্যুতের মোট ৩ লাখ ১৫ হাজারটি মিটার স্থাপন করা হয়েছে। বিনামূল্যে ঘরে-ঘরে বিদ্যুত পৌঁছানোর সরকারি ঘোষণা ও শতভাগ বিদ্যুত-সংযোগ বাস্তবায়েন নতুন করে আরো ৪৫ হাজার মিটার স্থাপনে কাজ চলছে এখন। জেলার ৫টি উপজেলায় নতুন বিদ্যুত লাইন স্থাপন করতেও গ্রাহকদের কাছ থেকে ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা হারে টাকা আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গ্রামে গ্রামে স্থানীয় প্রভাবশালী চক্রের সদস্যরা সংশ্লিষ্টদের ম্যানেজ করে এসব টাকা আদায় করছেন।
‘টাকা দিলে বিদ্যুত মিলবে না দিলে মিলবে না’ বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

জেলা সদরের টুমচর, শাকচর, চাঁদখালি গ্রাম ও রায়পুরের কেরোয়া, চরবংশী এলাকাসহ অন্যান্য উপজেলার প্রতিটি এলাকায় নতুন সংযোগের অপেক্ষাকৃত গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা আদায় করছেন দালালরা। তারা লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিলেও উল্লেখযোগ্য কোন লক্ষ্মীপুরলক্ষ্মীপুরব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না তাদের বিরুদ্ধে। বিদ্যুতের খাম্বা ফেলতেই ৬ থেকে ১০ হাজার, মিটার ও ঘর ওয়ারিং করতে ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা আদায় করছেন এসব দালালরা। তবে দালালদের কেউ কেউ বলছেন, দ্রুত বিদ্যুত পেতে এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দেওয়া হচ্ছে এসব অবৈধ টাকা।

এ ব্যপারে লক্ষ্মীপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতির জেনারেল ম্যানেজার মো. শাহজাহান কবির বলছেন, কোথাও কোন অনিয়ম হলে সঙ্গে সঙ্গে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। গ্রাহকদের হয়রানি মুক্ত রাখতে কর্মকর্তারা সজাগ রয়েছেন জানিয়ে আগামী ২৯ জুনের মধ্যেই পুরো জেলা শতভাগ বিদ্যুতায়নের মধ্যে থাকবে বলে জানান তিনি।
এদিকে, সচেতনমহল মনে করছেন- গ্রাহকদের হয়রানি মুক্ত করতে ও সরকারি ভাবমূর্তি রক্ষায় এ ব্যাপারে জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।
নিউজ ক্রেডিট ঃ বিডি প্রতিদিন

আরও পড়ুন

বিশেষ মেহমান হিসাবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন বিএম এর নোয়াখালী জেলার সভাপতি ডাঃ এম এ নোমান,চাটখিল কামিল (এম.এ) মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও উপজেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া।

চাটখিলে ডিয়ার ছোয়াদ এজেন্সির হজ্জ প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান (রুবেল ভূঁইয়া) উপস্থিত নেতৃবৃন্দকে প্রতিষ্ঠানের চলমান উন্নয়ন এবং মাঠ সম্প্রসারণের কাজ সম্পর্কে অবগত করেন এবং মাদ্রাসা ক্যাম্পাস ঘুরিয়ে দেখান।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসার উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করলেন-এইচ এম ইব্রাহিম

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া বলেন,ঐতিহ্যবাহী চাটখিল কামিল মাদ্রাসা একটি শতবর্ষী প্রতিষ্ঠান।জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০২৪ এ প্রতিষ্ঠানটি উপজেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে আমার পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসা শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুপুর ১টার দিকে বাতাসে লাশের দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন দুর্গন্ধের উৎস খুঁজতে থাকে। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে লামচর গ্রামের সর্দার বাড়ি সংলগ্ন ডোবায় অর্ধগলিত একটি মরদেহ দেখতে পায় তারা।

চাটখিলে বৃদ্ধের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার

বেলায়েত হোসেন আশা করেন দলীয় নেতৃবৃন্দ ও তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সহযোগিতায় সর্বসাধারনের ভালোবাসায় তিনি বিপুল ভোটে চাটখিল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন।

চাটখিলে সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বেলায়েত এর মতবিনিময়

Comments are closed.