বৃহত্তর নোয়াখালী প্রবাসী কল্যাণ সমিতির বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান

116

সৌদি আরবের জেদ্দায় ১২ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রবাসী নোয়াখালীবাসীদের সামাজিক সংগঠন বৃহত্তর নোয়াখালী প্রবাসী কল্যাণ সমিতির দশম বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান। জেদ্দায় সংগঠনটি প্রতিষ্ঠিত হয় ২০০৫ সালে। জন্মলগ্ন থেকেই সমাজসেবামূলক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে জেদ্দায় প্রবাসীদের নজর কেড়েছে সংগঠনটি। জেদ্দার একটি পিকনিক স্পটে আয়োজন করা হয় বর্ষপূর্তির এই অনুষ্ঠান।
সংগঠনের সভাপতি আক্কাস মিঞার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল (শিক্ষা ও শ্রম) মুহাম্মদ রেজা-ই-রাব্বি। বিশেষ অতিথি ছিলেন সৌদি নাগরিক ও নামা কার্গোর সিইও ওয়াদি আল দিরা, সমিতির প্রধান উপদেষ্টা এ কে এম শাহজাহান সিরাজী, আবদুর রহমান ও নুর সামাদ মিয়াজি প্রমুখ।
রেজা-ই-রাব্বি তার বক্তব্যে বলেন, প্রবাসে বৃহত্তর নোয়াখালীবাসীদের কল্যাণে সমিতি বিশেষ অবদান রাখছে। গরিব ও অসহায় প্রবাসীদের আকামা ও চিকিৎসা সহায়তা প্রদানের পাশাপাশি টাকার সমস্যার কারণে যারা দেশে ফিরে যেতে পারছেন না তাদের সহযোগিতাসহ অন্যান্য যে সব কাজ করছে তা প্রশংসার দাবি রাখে।

সভা যৌথভাবে পরিচালনা করেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক আমির মুহাম্মদ ফিরোজ ও হেদায়েত উল্লাহ্। অনুষ্ঠানের সূচনায় পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত করেন মাওলানা মাস্কুর। স্বাগত বক্তব্য দেন এ কে এম শাহজাহান সিরাজী। সভাপতি আক্কাস মিঞা সমাপনী বক্তব্যে বলেন, আমাদের আর কোনো দাবি নাই, নোয়াখালী বিভাগ চাই। বৃহত্তর নোয়াখালীকে শীঘ্রই বিভাগ ঘোষণার দাবি জানান তিনি।
সমিতি প্রতি বছর সংগঠনের দুজন সদস্যকে আজীবন সদস্য সম্মাননা প্রদান করে থাকে। এবার এই সম্মাননা পুরস্কার পেয়েছেন আবুল খায়ের ভূঁইয়া ও এ কে এম শাহ আলম মিয়া। এ ছাড়া পরীক্ষায় বৃহত্তর নোয়াখালীর জেদ্দাপ্রবাসী শিক্ষার্থী যারা কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল করেছে তাদের সমিতির পক্ষ থেকে গোল্ড মেডেল ​ও কয়েকজন ব্যবসায়ীকে ক্রেস্ট দেওয়া হয়।
দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালায় ছিল মধ্যাহ্ন ভোজ, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা। সাংস্কৃতিক পর্বে প্রথমে নোয়াখালীর আঞ্চলিক গান পরিবেশন করে আক্কাস মিঞা ও তার দল। এরপর মিজানুর রহমান ও তার দল এবং মিজান, জাকির হোসেন ও রমজান সংগীত পরিবেশন করেন।

অনুষ্ঠানে জেদ্দার বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতাদের মধ্যে প্রকৌশলী নুরুল আমিন, মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন, মো. শাহ আলম, মঈনুদ্দিন ভূঁইয়া, আবুল কাশেম, সাইদুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান, মার্শাল কবির, আবদুল মান্নান, এম এ আজাদ, এইচ এম সেলিম ও রওশন জামিলসহ আরও অনেকে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, গত বছর সমিতি শহিদুজ্জামান (ঢাকা), মুন্নি আক্তার (চাটখিল, নোয়াখালী), শামছুন নাহার (জেদ্দা, সৌদি আরব), শামছুল আলম (চাটখিল, নোয়াখালী) ও মো. হানিফকে (সদর, নোয়াখালী) চিকিৎসা খাতে, কোরআনের আলো অনুষ্ঠানকে (বাংলাভিশন, ঢাকা) শিক্ষা খাত থেকে, সেতারা বেগম (পিরোজপুর), নাজির আহমেদ (জেদ্দা, সৌদি আরব), ফাতেমা বেগম (চাটখিল, নোয়াখালী) ও মনোয়ারা বেগমকে (সোনাইমুড়ী, নোয়াখালী) আর্থিক, মৃত হ‌ুমায়ূন কবিরের (মতলব, চাঁদপুর) মরদেহ দেশে প্রেরণে এবং বিমান টিকিট ক্রয়ের জন্য সাদেক উল্লাহ (কোম্পানীগঞ্জ, নোয়াখালী) ও ওমর ফারুককে (জেদ্দা, সৌদি আরব) সহায়তা প্রদান করেছে।

আরও পড়ুন

Comments are closed.