নোয়াখালী-৫ আসনে তিন লক্ষাধিক ভোটের ব্যবধানে জয়ী ওবায়দুল কাদের

316

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যে ক’টি আসনে হেভিওয়েট প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন, তার মধ্যে নোয়াখালী-৫ আসন অন্যতম।

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ ও কবিরহাট থানা নিয়ে গঠিত এই সংসদীয় আসন। যেখানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ।

দুই দলের এ দুই সেরা প্রার্থীর লড়াইয়ে কে জেতে, কে হারে- এ নিয়ে জ্বল্পনা-কল্পনার কমতি ছিল না ভোটার থেকে শুরু করে সারা দেশের সব দলের মানুষের মধ্যে।

রোববার সারাদিন ভোট গ্রহণ শেষে যখন গণনা শুরু হলো, তখন সারা দেশে অন্য আসনগুলোর মতোই আওয়ামী লীগের জয়জয়কার এই আসনেও।

দিন শেষে ১২৩টি কেন্দ্রের ভোট গণনা শেষে বেসরকারি ফলাফলে বিপুল ব্যবধানে মওদুদ আহমদকে হারিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি পেয়েছেন ৩ লাখ ২০ হাজার ৭৬৫ ভোট।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মওদুদ আহমদ পেয়েছেন মাত্র ১০৯৭০ ভোট। অর্থাৎ, বিএনপি প্রার্থী মওদুদ আহমদকে ২ লাখ ৪১ হাজার ৭৭৪ ভোটের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছেন ওবায়দুল কাদের।

এর আগে এই আসন থেকে ৫ বার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ওবায়দুল কাদের। জিতেছিলেন ৩ বার। ২০১৪ সালের নির্বাচনে তিনি জিতেছিলেন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়।

২০০৮ সালেও মওদুদ আহমদকে পরাজিত করেছিলেন কাদের। সেবার পেয়েছিলেন ১ লাখ ১২ হাজার ৫৭৫ ভোট। ২০০১ সালের নির্বাচনে হেরেছিলেন মওদুদের কাছে। সেবার কাদের পান ৪৫ হাজার ৯৭২ ভোট।

এর আগে প্রথমবার ওবায়দুল কাদের বিজয়ী হয়েছিলেন ১৯৯৬ সালে। সেবার কাদের পেয়েছিলেন ৪০ হাজার ২৮০ ভোট। এর আগে ১৯৯১ সালে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে হেরে যান। তখন পেয়েছিলেন ২৭ হাজার ৯১৭ ভোট।

মওদুদ আহমদ এর আগে চারবার নির্বাচনে অংশ নিয়ে এই আসনে জিতেছিলেন ২ বার। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন জাতীয় পার্টি থেকে লাঙল প্রতীক নিয়ে। সেবার ৩১ হাজার ৪৪৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন তিনি।

১৯৯৬ সালে ওবায়দুল কাদেরের কাছে হেরে যান মওদুদ। সেবারও মওদুদ ছিলেন জাতীয় পার্টিতে। নির্বাচন করেন লাঙল প্রতীক নিয়ে। ২৮ হাজার ৭৪৪ ভোট পেয়ে পরাজিত হন মওদুদ।

২০০১ সালে মওদুদ নির্বাচন করেন ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে। তখন তিনি হারান ওবায়দুল কাদেরকে। পেয়েছিলেন ৮৪ হাজার ৫৭৮ ভোট।

সর্বশেষ ২০০৮ সালের নির্বাচনে ওবায়দুল কাদেরের কাছে হেরে যান মওদুদ। তবে মওদুদ পেয়েছিলেন ১ লাখ ১১ হাজার ২০৪ ভোট। কিন্তু এবার মওদুদ পেলেন মাত্র ১০ হাজার ৯৭০ ভোট।

আরও পড়ুন

বিশেষ মেহমান হিসাবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন বিএম এর নোয়াখালী জেলার সভাপতি ডাঃ এম এ নোমান,চাটখিল কামিল (এম.এ) মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও উপজেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া।

চাটখিলে ডিয়ার ছোয়াদ এজেন্সির হজ্জ প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান (রুবেল ভূঁইয়া) উপস্থিত নেতৃবৃন্দকে প্রতিষ্ঠানের চলমান উন্নয়ন এবং মাঠ সম্প্রসারণের কাজ সম্পর্কে অবগত করেন এবং মাদ্রাসা ক্যাম্পাস ঘুরিয়ে দেখান।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসার উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করলেন-এইচ এম ইব্রাহিম

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া বলেন,ঐতিহ্যবাহী চাটখিল কামিল মাদ্রাসা একটি শতবর্ষী প্রতিষ্ঠান।জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০২৪ এ প্রতিষ্ঠানটি উপজেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে আমার পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসা শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুপুর ১টার দিকে বাতাসে লাশের দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন দুর্গন্ধের উৎস খুঁজতে থাকে। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে লামচর গ্রামের সর্দার বাড়ি সংলগ্ন ডোবায় অর্ধগলিত একটি মরদেহ দেখতে পায় তারা।

চাটখিলে বৃদ্ধের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার

বেলায়েত হোসেন আশা করেন দলীয় নেতৃবৃন্দ ও তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সহযোগিতায় সর্বসাধারনের ভালোবাসায় তিনি বিপুল ভোটে চাটখিল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন।

চাটখিলে সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বেলায়েত এর মতবিনিময়

Comments are closed.