নোয়াখালীর ৬টি আসনের ৭৬১ কেন্দ্রের মধ্যে ৬৭১টি ঝুঁকিপূর্ণ

156

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নোয়াখালীর ৬টি আসনের ৭৬১টি কেন্দ্রের মধ্যে ৬৭১টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ বা ‘গুরুত্বপূর্ণ’ এবং ৯০টিকে সাধারণ কেন্দ্র হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট, বিএনপি নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্ট, জাতীয় পার্টি, জাকের পার্টি, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন, খেলাফত মজলিশ, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ, গণতন্ত্রী পার্টি, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ, প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দল, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ৪৮ জন সংসদ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

জেলার ৬টি আসন ৮টি পৌরসভা ও ৯০টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। মোট ভোটার ২১ লাখ ৪৯ হাজার ২৩৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১০ লাখ ৯৭ হাজার ৩৫৩ জন এবং নারী ভোটার ১০ লাখ ৫১ হাজার ৮৮৬ জন। মোট কেন্দ্র ৭৬১টি। মোট কক্ষ ৪ হাজার ২৩৮টি।

নোয়াখালী-১ (চাটখিল-সোনাইমুড়ী আংশিক) সংসদীয় আসন-২৬৮, ২ টি পৌরসভা ও ১৬টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। এখান মোট ভোটার ৩ লাখ ৪৭ হাজার ৬৭১ জন। মোট কেন্দ্র ১২৯টি। মোট কক্ষ ৬৫৩টি।

নোয়াখালী-২ (সেনবাগ-সোনাইমুড়ী আংশিক) সংসদীয় আসন-২৬৯, ১টি পৌরসভা ও ১২টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। মোট ভোটার ২ লাখ ৭৩ হাজার ৮৫১ জন। মোট কেন্দ্র ১০৩টি। মোট কক্ষ ৫৩৪টি।

নোয়াখালী-৩ (বেগমগঞ্জ), সংসদীয় আসন-২৭০, আসন ১ টি পৌরসভা ও ১৬ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। মোট ভোটার ৩ লাখ ৯২ হাজার ৩৩০ জন। মোট কেন্দ্র ১৪৬টি। মোট কক্ষ ৮৪৮টি।

নোয়াখালী-৪ (সদর-সুবর্ণচর) সংসদীয় আসন-২৭১, ১টি পৌরসভা ও ২১টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। মোট ভোটার ৫ লাখ ৪৪ হাজার ৭৪০ জন। মোট কেন্দ্র ১৮২টি। মোট কক্ষ ১০৫৫টি।

নোয়াখালী-৫ (কোম্পানীগঞ্জ-কবিরহাট) সংসদীয় আসন-২৭২। এই আসন ২টি পৌরসভা ও ১৫টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। মোট ভোটার ৩ লাখ ৩১ হাজার ৭৯৩ জন। মোট কেন্দ্র ১২৪টি। মোট কক্ষ ৬১৮টি।

নোয়াখালী-৬ (হাতিয়া) সংসদীয় আসন-২৭৩, ১টি পৌরসভা ও ১০টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। মোট ভোটার ২ লাখ ৫৮ হাজার ৮৫৪ জন। মোট কেন্দ্র ৭৭টি। মোট কক্ষ ৫৩০টি।

জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং অফিসার তন্ময় দাস জানান, ‘অবাধ, সুষ্ঠু ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে প্রশাসন ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা হাতে নিয়েছে। জেলার ৬টি আসনে ৭৬১টি কেন্দ্রের মধ্যে ৯০টি সাধারণ কেন্দ্র এবং ৬৭১টি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এসব কেন্দ্রে ২০২২ জন পুলিশ সদস্য ও ৯১৩২ জন অঙ্গীভূত পুরুষ এবং নারী আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন।’

তিনি আরও জানান, প্রতিটি সাধারণ কেন্দ্রে ১ জন অস্ত্রসহ পুলিশ, অঙ্গীভূত আনসারের ১জন পিসি (অস্ত্রসহ), ১ জন এপিসি, ৬ জন পুরুষ অঙ্গীভূত আনসার, ৪ জন নারী অঙ্গীভূত আনসার ও ১ জন গ্রাম পুলিশসহ ১৪ জন দায়িত্ব পালন করবেন এবং গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ২ জন অস্ত্রসহ পুলিশ, অঙ্গীভূত আনসারের ১জন পিসি (অস্ত্রসহ), ১ জন এপিসি, ৫ জন পুরুষ অঙ্গীভূত আনসার, ৪ জন নারী অঙ্গীভূত আনসার ও ১ জন গ্রাম পুলিশ সহ ১৪ জন দায়িত্ব পালন করবেন। পাশাপাশি ১২ টি টিমে ৯৬ জন র‍্যাব সদস্য, ১১টি টিমে ২২০ জন বিজিবি সদস্য, আনসার ব্যাটালিয়নের ৫৭ জন সদস্য, ৬৪ জন কোস্টগার্ড সদস্য এবং ৬৭০ জন সেনা সদস্য স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এর পাশাপাশি চাটখিল, সোনাইমুড়ী, সেনবাগ, বেগমগঞ্জ, সদর, সুবর্ণচর, কোম্পানীগঞ্জ ও কবিরহাট উপজেলায় ৩ জন করে এবং হাতিয়া উপজেলায় ২ জন সহ মোট ২৬ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের দায়িত্ব পালন করবেন

আরও পড়ুন

বিশেষ মেহমান হিসাবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন বিএম এর নোয়াখালী জেলার সভাপতি ডাঃ এম এ নোমান,চাটখিল কামিল (এম.এ) মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও উপজেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া।

চাটখিলে ডিয়ার ছোয়াদ এজেন্সির হজ্জ প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান (রুবেল ভূঁইয়া) উপস্থিত নেতৃবৃন্দকে প্রতিষ্ঠানের চলমান উন্নয়ন এবং মাঠ সম্প্রসারণের কাজ সম্পর্কে অবগত করেন এবং মাদ্রাসা ক্যাম্পাস ঘুরিয়ে দেখান।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসার উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করলেন-এইচ এম ইব্রাহিম

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া বলেন,ঐতিহ্যবাহী চাটখিল কামিল মাদ্রাসা একটি শতবর্ষী প্রতিষ্ঠান।জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০২৪ এ প্রতিষ্ঠানটি উপজেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে আমার পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসা শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুপুর ১টার দিকে বাতাসে লাশের দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন দুর্গন্ধের উৎস খুঁজতে থাকে। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে লামচর গ্রামের সর্দার বাড়ি সংলগ্ন ডোবায় অর্ধগলিত একটি মরদেহ দেখতে পায় তারা।

চাটখিলে বৃদ্ধের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার

বেলায়েত হোসেন আশা করেন দলীয় নেতৃবৃন্দ ও তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সহযোগিতায় সর্বসাধারনের ভালোবাসায় তিনি বিপুল ভোটে চাটখিল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন।

চাটখিলে সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বেলায়েত এর মতবিনিময়

Comments are closed.