নোয়াখালীর নয়টি উপজেলায় ১৫ দিনে শীতজনিত রোগে ৪৫ শিশুর মৃত্যু!

0 ৩৫

নোয়াখালীর ৯টি উপজেলায় গত ১৫ দিনে শীতজনিত নানা রোগে নবজাতকসহ ৪৫ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত রয়েছে দুই শতাধিক শিশু। শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের অভাবে চিকিৎসায় হিমশিম খাচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক (উপ-পরিচালক) ডাক্তার খলিলুর রহমান জানান, এবারের তীব্র শীতে শীতজনিত রোগবালাই যেমন শিশুদের সর্দি, কাশি, জ্বর এবং জ্বর থেকে নিউমোনিয়া, গলাব্যথা রোগে ব্যাপক মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। এর মধ্যে ৫ বছর পর্যন্ত শিশুর সংখ্যাই বেশি। শুধু নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালেই গত ১৫ দিনে ৩১ শিশু মারা গেছে। বর্তমানে ভর্তি রয়েছে শতাধিক শিশু। তাদের চিকিৎসার জন্য বিশেষ মেডিকেল টিম গঠন করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

নোয়াখালীর সিভিল সার্জন ডা. মোমিনুল হক জানান, নোয়াখালীর ৯টি উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রেই প্রতিদিন প্রচুর শিশু রোগী আসে। সব স্বাস্থ্য কেন্দ্রে শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক না থাকায় খারাপ রোগী শিশু হয়। সংকটাপন্ন হলে তাদেরকে ঢাকা বা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেও পাঠানো হয়।

তিনি জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে ওষুধ থাকলেও অক্সিজেন অপ্রতুল থাকায় সব সময় চিকিৎসা দেয়া যায় না। জেলায় জেনারেল হাসপাতালসহ ৪৫টি শিশুর মৃত্যু রেকর্ড থাকলেও শিশু মৃত্যুর সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে।

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের সাবেক তত্ত্বাবধায়ক ডা. সামছুল করিম জানান, গ্রামেগঞ্জে মায়েরা সচেতন না হওয়ায় শিশু মৃত্যুর হার বেড়ে যাচ্ছে। শিশুরা অসুস্থ হয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে যদি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয় তাহলে শিশু মৃত্যুর হার কমানো সম্ভব। তাছাড়া গ্রামের পল্লী চিকিৎসকদের অপচিকিৎসায়ও শিশু মৃত্যুর হার বেড়ে যাচ্ছে। তাই গ্রামেগঞ্জে বিশেষ করে চরাঞ্চলে এ মুহূর্তে স্বাস্থ্যসচেতন কার্যক্রম চালানো উচিত।

আরও পড়ুন
মন্তব্য
Loading...