দেশের ফুটবলের আরো উন্নয়নে সরকার পদক্ষেপ নিচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

56

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের ফুটবলের আরো উন্নয়নে সরকার ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। তিনি বলেন, ‘ফুটবল জনপ্রিয় খেলা। এই খেলার আরো উন্নয়নে আমরা পদক্ষেপ গ্রহণ করছি। আমরা প্রতিটি উপজেলায় মিনি স্টেডিয়াম করছি যাতে করে আমাদের ছেলে-মেয়েরা সেখানে অনুশীলন করতে পারে।’

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ এবং বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ড কাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০১৮ এর বিজয়ীদের মধ্যে ট্রফি ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা চাই দেশের ছেলে-মেয়েরা তাদের মানসিকভাবে সুস্থ ও শারীরিকভাবে ফিটনেস ধরে রেখে এবং শৃঙ্খলা অর্জন করে খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে অংশ নেবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এত বিশাল সংখ্যায় টুর্নামেন্ট এত খেলোয়াড় নিয়ে পৃথিবীর আর কোনো দেশ আর কখনও আয়োজন করতে পেরেছে কিনা সন্দেহ। সেজন্য তিনি যারা এই আয়োজনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন, তাঁদের সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, আজকে যারা খেলাধুলায় অত্যন্ত পারদর্শিতা দেখাচ্ছে আগামীতে তারা আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে আরো সম্মান দেশের জন্য বয়ে আনবে সেটাই আমরা আশাকরি। আর আমাদের দেশে জনপ্রিয় খেলা ফুটবলের যেন আরো উন্নতি হয় আমরা সেই ব্যবস্থা নিচ্ছি, যে কারণে সমগ্র বাংলাদেশের প্রত্যেক উপজেলায় আমরা একটা করে মিনি স্টেডিয়াম তৈরি করে দিচ্ছি। ছেলে-মেয়েরা যাতে সবসময় খেলাধুলাটা অনুশীলন করতে পারে, সেজন্য এই পদক্ষেপটা আমরা নিয়েছি। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটা তৈরি হয়ে গেছে, আরো হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন এবং রানার্স আপসহ যারা অংশগ্রহণ করেছেন সব শিক্ষার্থী-খেলোয়াড় এবং অভিভাবক- সবাইকে আমি অভিনন্দন জানাই। আজকে একটি দল শিরোপা জিতেছে, আগামীতে হয়তো অন্য কেউ আসবে কিন্তু এই প্রতিযোগিতা সুন্দরভাবে যেন চলতে পারে তার ব্যবস্থাটা নিতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, এমন বড় একটি টুর্নামেন্ট আয়োজন করে বাংলাদেশ বিশ্ব ইতিহাসে উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। তিনি উল্লেখ করেন, ৬৫ হাজার ৭৯০টি স্কুলের ১১ লাখ ১৮ হাজার ৫১৫ জন ছাত্র বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০১৮ তে অংশ নেয়। অন্যদিকে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ড কাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০১৮ তে ৬৫ হাজার ৭০০ স্কুলের ১১ লাখ ১৬ হাজার ৯০০ ছাত্রী অংশ নেয়।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের ভিআইপি লাউঞ্জে বসে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ড কাপের ফাইনাল ম্যাচ উপভোগ করেন।ফাইনালে রংপুর বিভাগের লালমনিরহাটের তেপুরগাড়ি বিকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে পরাজিত করে ময়মনসিংহের নান্দাইলের পাঁচরুখি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

অন্যদিকে বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের ফাইনালে সিলেট বিভাগের জৈন্তাপুরের হরিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রংপুর বিভাগের নীলফামারীর দক্ষিণ কানাইলঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে পরাজিত করে।বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ এবং বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ড কাপের ফাইনাল ম্যাচ যথাক্রমে বেলা দেড়টা ও বিকেল সাড়ে ৩টায় অনুষ্ঠিত হয়।

বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ টুর্নামেন্ট ২০১০ সালে শুরু হয়। অন্যদিকে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ড কাপ শুরু হয় ২০১১ সালে।দুই টুর্নামেন্টই যথাক্রমে ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হয় এবং সমাপ্তি ঘটে জাতীয় পর্যায়ে ফাইনালের মাধ্যমে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় টুর্নামেন্ট দুটি আয়োজন করে।রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন দলকে তিন লাখ, রানার্সআপ দলকে দুই লাখ ও তৃতীয় স্থান অর্জনকারী দলকে এক লাখ টাকা করে প্রাইজমানি ও ট্রফি দেওয়া হয়। এ সময় টুর্নামেন্টে ব্যক্তিগত সেরাদের হাতেও অর্থ ও ট্রফি তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়ুন

বিশেষ মেহমান হিসাবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন বিএম এর নোয়াখালী জেলার সভাপতি ডাঃ এম এ নোমান,চাটখিল কামিল (এম.এ) মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও উপজেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া।

চাটখিলে ডিয়ার ছোয়াদ এজেন্সির হজ্জ প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান (রুবেল ভূঁইয়া) উপস্থিত নেতৃবৃন্দকে প্রতিষ্ঠানের চলমান উন্নয়ন এবং মাঠ সম্প্রসারণের কাজ সম্পর্কে অবগত করেন এবং মাদ্রাসা ক্যাম্পাস ঘুরিয়ে দেখান।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসার উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করলেন-এইচ এম ইব্রাহিম

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া বলেন,ঐতিহ্যবাহী চাটখিল কামিল মাদ্রাসা একটি শতবর্ষী প্রতিষ্ঠান।জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০২৪ এ প্রতিষ্ঠানটি উপজেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে আমার পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসা শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুপুর ১টার দিকে বাতাসে লাশের দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন দুর্গন্ধের উৎস খুঁজতে থাকে। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে লামচর গ্রামের সর্দার বাড়ি সংলগ্ন ডোবায় অর্ধগলিত একটি মরদেহ দেখতে পায় তারা।

চাটখিলে বৃদ্ধের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার

বেলায়েত হোসেন আশা করেন দলীয় নেতৃবৃন্দ ও তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সহযোগিতায় সর্বসাধারনের ভালোবাসায় তিনি বিপুল ভোটে চাটখিল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন।

চাটখিলে সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বেলায়েত এর মতবিনিময়

Comments are closed.