তারেক রহমানকে টর্চারের সঙ্গে আমি জড়িত ছিলাম না : লে. জে. (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী

তারেক রহমানকে টর্চারের সঙ্গে আমি জড়িত ছিলাম না : লে. জে. (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী

177

ওয়ান-ইলেভেন সরকারের অন্যতম কুশীলব বলে অভিযোগ তুললেও লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী নিজেকে কুশিলব মানতে নারাজ। তিনি মনে করেন ওই সময়ে প্রজাতন্ত্রের একজন সামরিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন মাত্র। ব্যক্তিগতভাবে তিনি কোনো কিছুই করেননি।

ওইসময়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে শারীরিক টর্চার করা হয়েছিল, অভিযোগ রয়েছে এতে আপনার সম্পৃক্ততা ছিল। এ প্রসঙ্গে মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, এটি বানানো গল্প, ভিত্তিহীন। এর সঙ্গে কোনোভাবেই আমি জড়িত ছিলাম না। তার সঙ্গে ও ওই পরিবারের সঙ্গে সুসম্পর্ক রয়েছে। এটি মানুষের ভুল ধারণা। তিনি বলেন, কে, কাকে নির্যাতন করলো বা করেছে আমি এ ব্যাপারে কিছুই জানি না বা জানার কথাও নয়। সামরিক কর্মকর্তা থাকাকালে খুব কম সময়ই তার সঙ্গে সাক্ষাৎ বা মেলামেশার সুযোগ হয়েছে।  শনিবার বনানীতে মাসুদ চৌধুরী তার অফিসে এক সাক্ষাতকারে এ প্রতিবেদকের সঙ্গে এসব কথা বলেন।

তারেক রহমানের রাজনীতি প্রসঙ্গে মাসুদ চৌধুরী বলেন, তিনি এখন সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তি। একটি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। গঠনতন্ত্র সংশোধন করে তাকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করা হয়েছে। তার নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়টি আদালতের বিষয়।  ওয়ান-ইলেভেন সরকারের অন্যতম কুশীলব আখ্যায়িত করা ও রাজনৈতিক নেতা ও ব্যবসায়ীদের ওই সময়ে নির্যাতন প্রসঙ্গে মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, এগুলোর সঙ্গে কোনোভাবেই আমি জড়িত ছিলাম না। ভুল ধারণা থেকে কুশীলব বলে। বরং এসব নির্যাতনের অভিযোগের বিষয় নিয়ে তৎকালীন জেনারেল মইন ইউ আহমদের সঙ্গে মতবিরোধ সৃষ্টি হয়েছিল বলেও জানান তিনি। আওয়ামী লীগ, বিএনপি’র অনেক রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আমার সুসম্পর্ক রয়েছে। এখনো সম্পর্কেও কোনো অবনতি হয়নি।

তিনি বলেন, দেশ চলেছে সাংবিধানিকভাবে স্বীকৃত জরুরি আইনে, রাষ্ট্রপতির শাসন ছিলো তখন। রাষ্ট্রপতি সাংবিধানিকভাবে রাষ্ট্রের সেনা, নৌ ও বিমান, এই তিনটি সশস্ত্রবাহিনীর সর্বাধিনায়ক, তাই সেনাবাহিনীর তিনিই ছিলেন সর্বোচ্চ কমান্ডেন্ট। তার নির্দেশে এবং সেনাবাহিনী প্রধানের নির্দেশে কাজ করেছি। ব্যক্তিগতভাবে কোনো কাজ করিনি। একেকজন একেকভাবে দেখেছে। একটি ডিভিশনের জিওসি’র দায়িত্বে ছিলাম। সেখানে অনেক কাজ ছিল। সম্পাদনা: মাহবুব আলম, ইকবাল খান

আরও পড়ুন

বিশেষ মেহমান হিসাবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন বিএম এর নোয়াখালী জেলার সভাপতি ডাঃ এম এ নোমান,চাটখিল কামিল (এম.এ) মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও উপজেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া।

চাটখিলে ডিয়ার ছোয়াদ এজেন্সির হজ্জ প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান (রুবেল ভূঁইয়া) উপস্থিত নেতৃবৃন্দকে প্রতিষ্ঠানের চলমান উন্নয়ন এবং মাঠ সম্প্রসারণের কাজ সম্পর্কে অবগত করেন এবং মাদ্রাসা ক্যাম্পাস ঘুরিয়ে দেখান।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসার উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করলেন-এইচ এম ইব্রাহিম

মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি মো.মেহেদী হাছান রুবেল ভূঁইয়া বলেন,ঐতিহ্যবাহী চাটখিল কামিল মাদ্রাসা একটি শতবর্ষী প্রতিষ্ঠান।জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০২৪ এ প্রতিষ্ঠানটি উপজেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে আমার পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

চাটখিল কামিল মাদ্রাসা শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুপুর ১টার দিকে বাতাসে লাশের দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন দুর্গন্ধের উৎস খুঁজতে থাকে। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে লামচর গ্রামের সর্দার বাড়ি সংলগ্ন ডোবায় অর্ধগলিত একটি মরদেহ দেখতে পায় তারা।

চাটখিলে বৃদ্ধের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার

বেলায়েত হোসেন আশা করেন দলীয় নেতৃবৃন্দ ও তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সহযোগিতায় সর্বসাধারনের ভালোবাসায় তিনি বিপুল ভোটে চাটখিল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন।

চাটখিলে সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বেলায়েত এর মতবিনিময়

Comments are closed.