আহত ছেলেকে দেখতে যাওয়ার পথে লাশ হলেন বাবা-মাসহ ৭ জন

502

লক্ষ্মীপুরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত ছাত্রলীগ নেতা অন্তরকে দেখতে যাওয়ার পথে ট্রাকের সঙ্গে সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে বাবা-মা ও পরিবারের আরও চারজনসহ মোট সাতজন নিহত হয়েছেন। বুধবার (২৩ জানুয়ারি) ভোর রাতে ঢাকা-রায়পুর মহাসড়কের রতনপুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতদের লাশ উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিহতরা হলেন, চন্দ্রগঞ্জ বসুদুহিতা এলাকার ছাত্রলীগ নেতা অন্তরের বাবা শাহ আলম, অন্তরের মা নাসিমা, নানী শামছুন্নাহার (৪২), খালা রোকেয়া ও তার ছেলে রুবেল, অন্তরের ভাই অমিদ (৮) এবং সিএনজি চালক নুর হোসেন সোহাগ।

চন্দ্রগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শাহজাহান জানান, ভোর রাতে লক্ষ্মীপুর থেকে ছেড়ে যাওয়া একটি মালবাহী ট্রাক ( ঢাকা মেট্রো-ট ১৪-০৬৭৭৭) ঘন কুয়াশার ভেতরে দ্রুত গতিতে চট্টগ্রাম যাচ্ছিল। ঘটনাস্থলে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা সিএনজি চালিত অটোরিকশার ঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে সিএসজিটি ধুমড়ে-মুচড়ে চালকসহ ওই সিএনজিতে থাকা সব যাত্রী নিহত হন।

পুলিশ জানায়, ট্রাক ও সিএনজি উদ্ধার করা হয়েছে। বর্তমানে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

প্রসঙ্গত, এর আগে মধ্যরাতে স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা অন্তরকে পিটিয়ে আহত করে দুর্বৃত্তরা। তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অন্তরের স্বজনরা তাকে দেখতে হাসপাতালে আসার পথে এ দুর্ঘটনার শিকার হন অন্তরের পরিবার।

আরও পড়ুন

অল্পদিনের মধ্যেই এখানকার উন্নয়ন কর্মকাণ্ড গতিশীল হবে জানিয়ে তিনি বলেন, কোনো অন্যায়, অবিচার, অনিয়ম ও চাঁদাবাজ আমার কাছে প্রশ্রয় পাবে না।

নিজ এলাকায় জনগণের ভালোবাসায় সিক্ত হলেন এইচ এম ইব্রাহিম এমপি

মফস্বলে সাংবাদিকতা করা একটা চ্যালেঞ্জ বলে মন্তব্য করেছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও নোয়াখালী-১ (চাটখিল-সোনাইমুড়ী) আসনের সংসদ সদস্য এইচ এম ইব্রাহিম।

মফস্বল সাংবাদিকতা করা একটা চ্যালেঞ্জ – এইচ এম ইব্রাহিম

এইচ এম ইব্রাহিম বলেন,আমার নির্বাচনী এলাকার অসুবিধাগ্রস্থ মানুষদের মাঝে অতীতের ন্যায় এবারও আমি শীতবস্ত্র বিতরণ করেছি। আমার নেতাকর্মীদের মাধ্যমে আমি প্রায় পঞ্চাশ হাজার পরিবারের কাছে এই শীতবস্ত্র পৌঁছানোর ব্যবস্থা করেছি।

নোয়াখালী-১ আসনে এইচ এম ইব্রাহিম এমপির শীতবস্ত্র বিতরণ

গ্রেপ্তার হওয়া মোশারফ হোসেন টিটু (২২) কবিরহাট থানার সুন্দলপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের লাতু সওদাগর বাড়ির মৃত মিয়াধনের ছেলে। সে পেশায় একজন মোবাইল মেকানিক।

কবিরহাটে ভাবির ব্যক্তিগত ভিডিও নিয়ে দেবর গ্রেপ্তার

Comments are closed.