আমার স্বপ্ন একদিন দেশের সেরা ফটোগ্রাফার হবো – রবিন

0 42

ফটোগ্রাফি ও ফটোগ্রাফার বর্তমান সময়ে খুব পরিচিত ও জনপ্রিয় একটি সৌখিন পেশা। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের কাছে।

মূলত ডিএসএলআর ক্যামেরা এখন সহজ লভ্য হওয়ায় প্রায় সবার হাতেই এই ক্যামেরা দেখা যাচ্ছে। কিন্তু এই বিশেষ ক্যামেরা গুলো কিনে এখনকার তরুণ প্রজন্মের অনেকেই শখের বসে ফটোগ্রাফার হয়ে যাচ্ছেন। এতে কেউ সফল হচ্ছে আবার কেউ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ভালো ছবি তোলার। কেউ ফটোগ্রাফির উপর প্রশিক্ষণ নিয়ে ছবি তুলছে কেউ বা আবার নিজে থেকে নিজের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে ছবি তুলে যাচ্ছে। শখের বসে শুরু করে এ পেশায় এগিয়ে যাওয়া তেমনি এক তরুনের গল্প শোনবো আজ।

 


বলছিলাম নতুন উদ্দীপনায় জাগা নোয়াখালীর তরুন ফটোগ্রাফার শাহরিয়াজ রবিনের কথা। নিজের শখ আর স্বপ্ন কে যে নিয়ে এসেছে পেশাগত ধারায়। ইচ্ছা তার আকাশ ছোঁয়ার নয়, মানুষের স্মৃতি গুলো ফ্রেমে বন্দি করে তার সাক্ষী হওয়ার। একটি ছোট মোবাইল ফোন থেকে যার এ স্বপ্নের যাত্রা শুরু। হাঁটি হাঁটি পা পা করে আজ অনেকটা পথ পাড়ি দিয়েছে এ তরুন। চলার পথে যোগ করে নিয়েছে অত্যাধুনিক সকল ক্যামেরা সহ নানান সরঞ্জাম এবং আরো কিছু নৈপুন্য কাজের, কাজ করছে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার সৌন্দর্য বর্ধনে।
গ্রামের বিয়েকে শহুরে আঙ্গিকে রুপ দিতে তার টিম সব সময় বদ্ধ পরিকর। তরুন ফটোগ্রাফার শাহরিয়াজ রবিন পড়ছে ডিগ্রি প্রথম বর্ষে। কাজ করছে ওয়েডিং ফটোগ্রাফি নিয়ে। স্বপ্ন একদিন অনেক বড় ওয়েডিং ফটোগ্রাফার হওয়ার! তার শৈল্পিকতা অন্যের প্রতিচ্ছবির অলংকরনে। অন্যের স্মৃতি, মূহুর্ত ফ্রেমে বন্দি করা-ই যার শখ।একটু একটু করে এগিয়ে যাচ্ছে এ শখ ও পেশা দুটোকে এক করে। শখ আর অন্যের রোমাঞ্চকর মূহুর্ত জোড়া লাগায় এক শিকড়ে। প্রত্যাশায় জাগিয়ে তোলে ভালোবাসা। সাজিয়ে তুলছে অনুষ্ঠানের পিছনের গল্প, সাজ সজ্জায় আধুনিকতা আর স্বকীয়তার আত্মপ্রয়োগ। বেড়ে উঠুক আপন উদ্দিপনায়।
সেই ছোট্র পরিসর থেকে কাজ শুরু করে খুব অল্প সময়ের মধ্যে তার মেধা আর যোগ্যতায় এক এক করে আজ দুইটি প্রতিষ্ঠানের মালিকানার দাবিদার। JN PHOTOGRAHY এবং DREAM EVENT MANAGEMENT এ দুটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ক্রিয়েটিভ সব কাজ করে ইতোমধ্যে নোয়াখালীতে বেশ আলোচনায় এসেছেন এ তরুন। যেন এক স্বপ্নের পাড়ি দেয়া, এ এক শখের বহি:প্রকাশ ঘটতে চলেছে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।